বাংলাদেশের ঐতিহাসিক স্থানসমূহ

বাংলাদেশের ঐতিহাসিক স্থানসমূহ
বাংলাদেশ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের লীলাভূমি ছয় ঋতু, পাহাড়ি এলাকা, বিল-ঝিল, অবারিত ফসলের মাঠ আর জঙ্গল মিলে বাংলাদেশের প্রকৃতিকে বিশ্বের মাঝে এক অনন্য স্থান করে দিয়েছে এর মাঝে বাংলাদেশে ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ কতিপয় স্থান পুরাকীর্তি রয়েছে আমরা গত পর্বে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি ঐতিহাসিক স্থানের বিষয়ে জেনেছি আজ আরো কয়েকটি ঐতিহাসিক স্থান বিষয়ে আলোচনা করবো

ময়নামতি: ময়নামতি বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক পুরাকীর্তিসমূহের মাঝে অন্যতম। বর্তমান কুমিল্লা জেলায় অবস্থিত ময়নামতি। মধ্যযগে বৌদ্ধ শাসনামলে বাংলার রাজধানী ময়নামতি। তাই ময়নামতিকে বৌদ্ধ সভ্যতার আদি নিদর্শন বলা হয়। মধ্যযুগের বৌদ্ধ রাজা মানিকচন্দ্রের স্ত্রী রাণী ময়নামতির নামানুসারে ময়নামতি নামকরণ করা হয়। ময়নামতিতে লালমাই পাহাড়ও রয়েছে। লালমাই পাহাড় প্লাইস্টোসিন যুগে গঠিত হয়েছে বলে জানা যায়। লালমাই পাহাড়ের গড় উচ্চতা ২১ মিটার। ১৯৫৫ সালে ময়নামতি খনন করে পুরাতত্ত্ববিদরা অনেক প্রাচীন নিদর্শন আবিষ্কার করেছেন। এখানে শালবন বিহারের প্রাচীন নিদর্শন, বৌদ্ধ, জৈন হিন্দু ধমের্র বহু দেবদেবীর মূর্তি পাওয়া যায়। ময়নামতির অপর দুটো নাম হলো হিলটিয়া লালমাই

আহসান মঞ্জিল: বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থানগুলোর মাঝে আহসান মঞ্জিল একটি অন্যতম নাম। এটি রাজধানীর ইসলামপুর এলাকায় অবস্থিত। ঢাকার নবাব আব্দুল গণি ১৮৫৯ সালে আহসান মঞ্জিল নির্মাণ কাজ উদ্ভোধন করেন। এবং এর নির্মাণ কাজ শেষ হয় ১৮৭২ সালে। আহসান মঞ্জিলের নির্মাতা নওয়াব আব্দুল গণির পুত্র খাজা আহসান উল্লাহ এর নামানুসারে আহসান মঞ্জিল নামকরণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ সরকার ১৯৯২ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর আহসান মঞ্জিল জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করে। ১৮৮৮ সালের ভয়াবহ টর্নেডোতে আহসান মঞ্জিল প্রচন্ড ক্ষতিগ্রস্ত হয়

. উত্তরা গণভবন: ১৭৪৭ সালে তৎকালীন স্থানীয় শাসক রাজা দয়াময় রায় উত্তরা গণভবন স্থাপন করেন। এটি বর্তমান নাটোর জেলার নাটোর জেলা শহরের থেকে কিলোমিটার দূরের বগুড়া মহাসড়কের পাশে অবস্থিত। ২৪ জুলাই ১৯৬৭ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর মোনায়েম খান গভর্নর হাইস ঘোষণা করেন। পরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ফেব্রুয়ারি এই রাজবাড়ির নাম পাল্টে উত্তরা গণভবন নামকরণ করেন। রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ক্ষমতাকালে ১৯৮০ সালের ১৭ নভেম্বর প্রথম মন্ত্রীসভার বৈঠক করেন। এই ভবনকে বাংলাদেশ সরকারের উত্তরাঞ্চলীয় সচিবালয় বলা হয়। উত্তরা গণভবন বাংলাদেশের একটি অন্যতম দর্শনীয় স্থান। 

তথ্যসূত্র: বাংলাদেশ হ্যান্ডনোট, উইকিপিডিয়া, জাদুঘর, সরকারি গেজেট

আরও পড়ুন- বাংলাদেশের ঐতিহাসিক নিদর্শনসমূহ

 


Next Post Previous Post